ঢাকা ০৯:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শাল্লার নাট্য অভিনেতা আনন্দ বাবু চলে গেলেন না ফেরার দেশে

পিসি দাশ, সুনামগঞ্জ।
  • আপডেট সময় : ১২:৫৩:১৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ নভেম্বর ২০২২ ১১৯ বার পড়া হয়েছে
দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

হাওর বেষ্টিত সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার ডুমরা গ্রামের সুনামধন্য দক্ষ বিচক্ষণ নাট্য অভিনেতা, ডিরেক্টর দলিল লিখক আনন্দ মোহন দাশ চলে গেলেন না ফেরার দেশে। মৃত্যু কালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮০ বছর ।

বৃহস্পতিবার ১০ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি দীর্ঘ দিন যাবত শ্বাসকষ্ট রোগে আক্রান্ত ছিলেন। পরে সিলেট থেকে লাশ নিয়ে এসে কান্দকলা শ্মশানে উনার শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়।

আনন্দ মোহন দাশের ছেলে সুমন কুমার দাশ জানান, আমার বাবা দীর্ঘ দিন যাবত শ্বাসকষ্ট রোগে ভোগছিলেন। হঠাৎ গত শনিবার উনার শারীরিক অবস্থা খাড়াপ হওয়ায় সিলেট ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করি। ৬ দিন আইসিইউতে চিকিৎসারত অবস্থায় তিনি মারা জান।

আনন্দ মোহন দাশের বিষয়ে যাত্রা অভিনেতা শ্যামাপদ সরকার বলেন, আনন্দ বাবু একজন সর্বগুনের অধিকারী মানুষ ছিলেন। তিনি শুধু একজন সফল অভিনেতাই ছিলেন না তিনি একজন দলিল লিখক ও দক্ষ ডিরেক্টর ছিলেন। উনার মৃত্যুতে তিনি দুঃখ প্রকাশ করে উনার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ২ ছেলে ১ মেয়ে নাতি নাতনী আত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধব অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

শাল্লার নাট্য অভিনেতা আনন্দ বাবু চলে গেলেন না ফেরার দেশে

আপডেট সময় : ১২:৫৩:১৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ নভেম্বর ২০২২

হাওর বেষ্টিত সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার ডুমরা গ্রামের সুনামধন্য দক্ষ বিচক্ষণ নাট্য অভিনেতা, ডিরেক্টর দলিল লিখক আনন্দ মোহন দাশ চলে গেলেন না ফেরার দেশে। মৃত্যু কালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮০ বছর ।

বৃহস্পতিবার ১০ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি দীর্ঘ দিন যাবত শ্বাসকষ্ট রোগে আক্রান্ত ছিলেন। পরে সিলেট থেকে লাশ নিয়ে এসে কান্দকলা শ্মশানে উনার শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়।

আনন্দ মোহন দাশের ছেলে সুমন কুমার দাশ জানান, আমার বাবা দীর্ঘ দিন যাবত শ্বাসকষ্ট রোগে ভোগছিলেন। হঠাৎ গত শনিবার উনার শারীরিক অবস্থা খাড়াপ হওয়ায় সিলেট ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করি। ৬ দিন আইসিইউতে চিকিৎসারত অবস্থায় তিনি মারা জান।

আনন্দ মোহন দাশের বিষয়ে যাত্রা অভিনেতা শ্যামাপদ সরকার বলেন, আনন্দ বাবু একজন সর্বগুনের অধিকারী মানুষ ছিলেন। তিনি শুধু একজন সফল অভিনেতাই ছিলেন না তিনি একজন দলিল লিখক ও দক্ষ ডিরেক্টর ছিলেন। উনার মৃত্যুতে তিনি দুঃখ প্রকাশ করে উনার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ২ ছেলে ১ মেয়ে নাতি নাতনী আত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধব অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান।