ঢাকা ০৮:৪১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্বাধীনতা

একরামুল হক।
  • আপডেট সময় : ১২:২৫:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর ২০২২ ১১৫ বার পড়া হয়েছে
দেশের সময়২৪ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

|মোঃ আকরামুল হক|

১৬ই ডিসেম্বর  দিনটির অপেক্ষা  শুরু হয়েছিলো
১৭৫৭সালের পর থেকেই পলাশীর প্রন্তরে যার ফলশ্রুতিতে আমরা দেখেছিলাম ব্রিটিশ  খেদাও আন্দোলনের।

দেখেছিলাম হাজী শরীউতুল্লার ফরাজী আন্দোলন
দেখেছিলাম স্বদেশী আন্দোলন দেখেছিলাম তিতুমীরের বাঁশের কেল্লা দেখেছিলাম ক্ষুদিরামের ফাঁসি বরণ।১

৯৪৭সালের ভারত ভাগ তথা ভারত  পাকিস্তান  নাম দুইটি আলাদা রাষ্ট্রের উদভবন।

আবার শুরু হলো শাষন শুষন নির্যাতন।তারই ধারাবাহিকতায় আসলো দেখেছিলাম ৫২ইর ভাষা আন্দোলন দেখেছিলা বাশট্রির উনসত্তুর। সব শেষ উনিশ শত একাত্তুর।

সতেই মার্চ কবি আসলেন মন্চে ওঠলেন আর শুনালেন
দুই শত চৌদ্দ বছরের অপেক্ষমান বাঙ্গালীর মুক্তির সেই কবিতা রক্ত যখন দিয়েছি তখন রক্ত আরো দিবো তবু আমার নির্যাতীত  নিপীরিত বাঙ্গালীকে  মুক্ত করে ছারবো  ইনশাআল্লাহ।

তার পর ৯মাস বয়ে গেলো  রক্তের নদী
ত্রিশ লাক্ষ মানুষ তাদের জীবন দিলো
দুই লক্ষ মা বোন তাদের সম্রম বিলালো
যার ফলশ্রুতিতে আমার  মুক্ত হলাম
১৬ই ডিসেম্বার আমরা বিজয় অর্জন করলাম
যার ফলশ্রুতি আজকের বাংলাদেশ।
নতুন নাম নতুন পতাকা নিজস্ব সরকার গঠন করলাম।

তারপর ও কি পেরেছি স্বাধীন বাঁচতে
পেরেছি কি স্বাধীন ভাবে কথা বলতে
আজ স্বাধীনতার অর্ধ শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে শুনি
সম্ভ্রম হারানো নারীর আর্তনাদ
শুনি সন্তান হারানোর মায়ের আত্তবিলাপ
শুনি পিতা হারানো এতিমের অভিশাপ
তাঁর মানে কি আমরা আধো স্বাধীনতা পাইনি
আমাদের কি আবার জেগে উঠতে হবে
রুখতে হবে মানুষ রূপে জানোয়ার গুলো কে।

আবার কি কেউ রাজপথে দাঁড়িয়ে বলবে
আমাকে সংগ্রাম দাও আমি তোমাদের
স্বাধীনতা দিবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

স্বাধীনতা

আপডেট সময় : ১২:২৫:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর ২০২২

|মোঃ আকরামুল হক|

১৬ই ডিসেম্বর  দিনটির অপেক্ষা  শুরু হয়েছিলো
১৭৫৭সালের পর থেকেই পলাশীর প্রন্তরে যার ফলশ্রুতিতে আমরা দেখেছিলাম ব্রিটিশ  খেদাও আন্দোলনের।

দেখেছিলাম হাজী শরীউতুল্লার ফরাজী আন্দোলন
দেখেছিলাম স্বদেশী আন্দোলন দেখেছিলাম তিতুমীরের বাঁশের কেল্লা দেখেছিলাম ক্ষুদিরামের ফাঁসি বরণ।১

৯৪৭সালের ভারত ভাগ তথা ভারত  পাকিস্তান  নাম দুইটি আলাদা রাষ্ট্রের উদভবন।

আবার শুরু হলো শাষন শুষন নির্যাতন।তারই ধারাবাহিকতায় আসলো দেখেছিলাম ৫২ইর ভাষা আন্দোলন দেখেছিলা বাশট্রির উনসত্তুর। সব শেষ উনিশ শত একাত্তুর।

সতেই মার্চ কবি আসলেন মন্চে ওঠলেন আর শুনালেন
দুই শত চৌদ্দ বছরের অপেক্ষমান বাঙ্গালীর মুক্তির সেই কবিতা রক্ত যখন দিয়েছি তখন রক্ত আরো দিবো তবু আমার নির্যাতীত  নিপীরিত বাঙ্গালীকে  মুক্ত করে ছারবো  ইনশাআল্লাহ।

তার পর ৯মাস বয়ে গেলো  রক্তের নদী
ত্রিশ লাক্ষ মানুষ তাদের জীবন দিলো
দুই লক্ষ মা বোন তাদের সম্রম বিলালো
যার ফলশ্রুতিতে আমার  মুক্ত হলাম
১৬ই ডিসেম্বার আমরা বিজয় অর্জন করলাম
যার ফলশ্রুতি আজকের বাংলাদেশ।
নতুন নাম নতুন পতাকা নিজস্ব সরকার গঠন করলাম।

তারপর ও কি পেরেছি স্বাধীন বাঁচতে
পেরেছি কি স্বাধীন ভাবে কথা বলতে
আজ স্বাধীনতার অর্ধ শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে শুনি
সম্ভ্রম হারানো নারীর আর্তনাদ
শুনি সন্তান হারানোর মায়ের আত্তবিলাপ
শুনি পিতা হারানো এতিমের অভিশাপ
তাঁর মানে কি আমরা আধো স্বাধীনতা পাইনি
আমাদের কি আবার জেগে উঠতে হবে
রুখতে হবে মানুষ রূপে জানোয়ার গুলো কে।

আবার কি কেউ রাজপথে দাঁড়িয়ে বলবে
আমাকে সংগ্রাম দাও আমি তোমাদের
স্বাধীনতা দিবো।