ঢাকাবুধবার , ২৩ নভেম্বর ২০২২
  1. অপরাধ
  2. আইন আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. কৃষি
  5. খুলনা
  6. খুলনা
  7. খেলা
  8. গণমাধ্যম
  9. চট্টগ্রাম
  10. চট্টগ্রাম
  11. চাকরির খোঁজ
  12. জাতীয়
  13. ঢাকা
  14. ঢাকা
  15. তথ্য ও প্রযুক্তি
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভোলায় জমিনিয়ে বিরোধ স্কুল শিক্ষককে কুপিয়ে জখম

ইমতিয়াজুর রহমান, ভোলা।
নভেম্বর ২৩, ২০২২ ১১:৪৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ভোলায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে আল আমিন মাস্টার (৬০) নামের এক অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষককে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার (২১ নভেম্বর) বিকেলে ভোলা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়ন ৮ নম্বর ওয়ার্ড সামছুদ্দিনের পাকা রাস্তার মাথায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত শিক্ষকে প্রথমে ভোলা সদর হাসপাতালে পরে আসংঙ্কা জনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তী করা হয়।

আহত অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক আল আমিন মাস্টার সদর উপজেলার পশ্চিম শিবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক পদে কর্মরত ছিলেন । তিনি সদর উপজেলা শিবপুর ইউনিয় ৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক আল আমিন মাস্টারের সাথে তার প্রতিবেশি মাইন উদ্দিনের জমি কেনা-বেচার বায়না নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষই থানায় মামলা দায়ের করেন। জমিজমা ও মামলার জের নিয়ে সোমবার বিকেলে আতংকিত হামলা করে তাকে গুরুতর জখম করে।

আল আমিন মাস্টারের ছেলে ইমতিয়াজ জিম বলেন,আমার প্রতিবেশি মাইন উদ্দিনের সাথে আমাদের জমি জমার বিষয় নিয়া পূর্ব হইতে বিরোধ চলমান আছে। মাইন উদ্দিন গংরা আামদের জমি জোর পূর্বক ভোগদখলের চেষ্টা করে আসছি। আমরা তাদের প্রতিবাদ করলে তারা আমাদের বিভিন্ন ধরনের হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আসছে। আমরা স্থানীয় ভাবে একাধিকবার সালিশ মিমাংসার চেস্টা করলে।

তারা স্থানীয় সালিশ মিমাংসা তোয়াক্কা না করে। কিছুদিন পূর্বে আমাদের জমি জোর দখল করে আমাদের উপর হামলা করে এতে ১০ গুরুতর জখম করে। এতে ভোলা সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। উক্ত মামলায় আসামির জামিনে আসে আমাদে বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়া আসতেছে।

গত সোমবার (২১ নভেম্বর) বিকালে আমার বাবা তার শশুর বাড়ি থেকল নিজ মটরসাইকেল যোগে বাড়িতে আসার উদ্দেশ্যে ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সামছুদ্দিনের বাড়ীর সামনে উত্তর পার্শ্বে পাকা রাস্তার উপর আসলে মাইনুউদ্দিন গংরা পরিকল্পিতভাবে মটরসাইকেলর গতি রোধ করে পূর্ব বিরোধের জের ধরে এলোপাথারীভাবে মারধর করে।

এক পর্যায়ে মাইনউদ্দিন এর হাতে থাকা ধারালো বগি দা দিয়া হত্যার উদ্দেশ্যে তার মাথায় কোপ দেয়। এতে আমার বাবার মাথা ফেটে রক্তাক্ত জখম হয়। পরে বাবা মাটিতে লুটিয়ে পরে এসময় সন্ত্রাসী সালাউদ্দিন, তামিম, মনির হোসেন, মসিউর ও মনির উদ্দিন এর হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে এলোপাথাড়ি মেরে হাতে পায়ে সহ সরিলেন বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম করে।

এসময় বাবার সাথে থাকা মটরসাইকেলটি ভাংচুর করে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থা আশংকা জনক দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। তিনি বর্তমানে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসারত আছেন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মাইনুদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তাই তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এদিকে ভোলা সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহীন ফকির জানান, এঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে অভিযুক্ত দুই জনকে আটক করা হয়েছে।